অন্যান্য

বিমান আটকে দিলো মশা

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মশার কারণে প্রায় দেড় ঘণ্টা আটকে ছিল মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট।

বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দিনগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।

ওই বিমানের যাত্রী ও বিমান বন্দর সূত্র  জানায়, ‘রাত পৌনে ১টার দিকে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের ওই ফ্লাইট ঢাকা ত্যাগ করার উদ্দেশে শাহজালালের রানওয়েতে প্রস্তুত ছিল। উড়ার জন্য রানওয়ে ধরে কয়েক ফিট এগিয়েও ছিল বিমানটি। এসময় বিমানের ভেতরে অসংখ্য মশা ঢুকে পড়ায় যাত্রীরা চেঁচামেচি ও হট্টগোল শুরু করেন। পাইলটের নজরে এলো বিমানের সামনেও অসংখ্য মশা। যা সংখ্যায় বললে ‘লাখ লাখ’ বলতে হবে। পাইলট তৎক্ষণাৎ ফ্লাইটটি থামিয়ে দেন। দেড় ঘণ্টা পর ওই ফ্লাইটটি শাহজালাল বিমানবন্দর ত্যাগ করে। বিলম্বিত সময়ের মধ্যে বিমানের ভেতর ও রানওয়ের মশা তাড়ানোর ব্যবস্থা নেয় কর্তৃপক্ষ।

’সূত্র আরো জানায়, ‘ফ্লাইটে ওঠার পর যাত্রীরা মশার কামড়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন।’ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ‘মশার উৎপাতের কারণে বিমান আটকে যাওয়ার ঘটনা বিশ্বে বিরল।

‘শাহজালাল বিমানবন্দরে মশার উৎপাত নতুন নয়। ফ্লাইটে ওঠার পর যাত্রীরা মশার কামড়ে বিরক্তি প্রকাশ করছেন। বিদেশিরা হচ্ছেন অবাক। বিমানবন্দরের ভেতরে-বাইরে তো কথাই নেই। লাগেজ বেল্টেও যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকার ভোগান্তির সঙ্গে যোগ হয়েছে মশার কামড়। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিমানবন্দর কতৃপক্ষের কার্যত কোনো প্রদক্ষেপই চোখে পড়ার মতো নয়।’

একবার বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিমানবন্দরের দুরবস্থা নিয়ে আক্ষেপ করে বলেছিলেন, ‘এমন ঘটনায় দেশের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে।’

‘এ অভিযোগ শুধু মন্ত্রীর নয়, বিমানবন্দর ব্যবহারকারী প্রতিটি মানুষের। সীমাহীন অব্যবস্থাপনা, অপরিচ্ছন্নতা, মশার উপদ্রব, যাত্রী হয়রানি, ল্যাগেজ খুঁজে না পাওয়া নিত্যদিনের ঘটনা। বোডিং ব্রিজ না থাকায় যাত্রীদের এয়ারক্রাফটে আটকে রাখা হচ্ছে দীর্ঘক্ষণ। যাত্রীদের নামিয়ে দেয়া হচ্ছে ট্যাক্সি ওয়েতে। বাসে মশার আক্রমণের শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা। এ নিয়ে যাত্রীদের ক্ষোভের শেষ নেই।’

রিলেটেড সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close